মঙ্গলবার, ৪ অগাস্ট ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ২০ শ্রাবণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম
জাপানে ৪ দেশের নাগরিক প্রবেশে কঠোর বিধিনিষেধ  » «   আমরা বরিশালের পোলা পঁচাশি টাকা তোলা  » «   অক্টোবর মাসে শ্রীলঙ্কা সফরে যাচ্ছে বাংলাদেশ দল  » «   লাতিন আমেরিকায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা অর্ধকোটি  » «   আফগান কারাগারে বন্দুকধারীদের হামলা নিহত বেড়ে ৩৯  » «   নর্থ কারোলিনায় আঘাত হেনেছে হারিকেন ‘ইসাইয়াস  » «   সিনহা হত্যা পুলিশের প্রতি অনাস্থা আরও বাড়িয়েছে  » «   করোনায় আক্রান্ত ব্রাজিলের প্রেসিডেন্টের চিফ অব স্টাফ  » «   আইপিএলে পরিষ্কার করে দিলো অস্ট্রেলিয়া ও উইন্ডিজ  » «   হাতিরঝিলে গাছে ঝুলছিল মরদেহ  » «   ট্রাক-মোটরসাইকেল সংঘর্ষে রাজবাড়ীতে ২ জনের মৃত্যু  » «   সমুদ্রবন্দরে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত  » «   প্রীতি ফুটবল ম্যাচে বাংলাদেশের জয়  » «   সুপ্রিম কোর্ট খোলা নিয়ে ফুলকোর্ট সভা বৃহস্পতিবার  » «   পেঁয়াজ খেয়ে শত শত মানুষ অসুস্থ  » «  

সাংবাদিককে হাত-পা কেটে ফেলার হুমকি”দেশটা কি মগের মুল্লুক

Sharing is caring!

ফারাবি হাসান রাকিবঃজেলা প্রতিনিধি ;;ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সংবাদ প্রকাশ সংক্রান্ত ঘটনায় ছয় সাংবাদিককে হাত-পা কেটে নেওয়ার হুমকি দেওয়া হয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের মাধ‌্যমে।

মঙ্গলবার (৭ জুলাই) ফেসবুকে পোস্টের মাধ‌্যমে জেলার কসবা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট রাশেদুল কাওছার ভূইয়া জীবন ও পশ্চিম ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ছায়েদুর রহমান মানিকের পক্ষ থেকে এ হুমকি দেওয়া হয়।

বৃহস্পতিবার (৯ জুলাই) এ নিয়ে কসবা পশ্চিম ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ছায়েদুর রহমান থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন।

জিডিতে তিনি উল্লেখ করেন, হুমকি দেওয়া আইডিগুলো ফেক। এসব আইডির বিষয়ে তিনি অবগত নন। স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের জানিয়ে তিনি এ বিষয়ে সাধারণ ডায়েরি করেছেন।

সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রীর আর্থিক সহায়তার তালিকায় অনিয়ম নিয়ে কসবার একাধিক জনপ্রতিনিধি ও এডিপির কাজ না করেই বিল উত্তোলনের অভিযোগে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ পরিবেশিত হয়।

এরই জের ধরে ‘জীবন ভাইয়ের সৈনিক’, ‘মানিক চেয়ারম্যানের সৈনিক’ নামে দুটি ফেসবুক আইডি থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ছয় সাংবাদিককে হাত-পা কেটে নেওয়ার হুমকি দেওয়া হয়।

হুমকি প্রাপ্তরা হলেন- ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সদস্য সচিব দীপক চৌধুরী বাপ্পী, আখাউড়া প্রেস ক্লাবের সভাপতি মানিক মিয়া, দেশ রূপান্তরের ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রতিনিধি মনির হোসেন, সময় টিভির ব্যুরো চিফ উজ্জল চক্রবর্তী, এনটিভির নিজস্ব প্রতিবেদক শিহাব উদ্দিন বিপু ও কালেরকণ্ঠের ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি বিশ্বজিৎ পাল বাবু।

এদিকে বিষয়টি জানার পর ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোবাইল ফোনে কসবা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক রাশেদুল কাওছার ভূইয়া জীবনের সাথে কথা বলেন। পাশাপাশি এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতেও নির্দেশনা দেন।

কসবা উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও ঠিকাদার এমদাদুল হক পলাশ বলেন, ‘সাংবাদিকদের সাথে কসবা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও অন্যান্য য়ারম্যানের বিরোধ সৃষ্টির জন্য কোনো একটি পক্ষ সুযোগ নিতে এ ধরনের কাজ করেছে। বিষয়টি বুঝতে পেরে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নিজেই জিডি করার উদ্যোগ নিয়েছেন।’

এ ব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সদস্য সচিব দীপক চৌধুরী বাপ্পী বলেন, ‘ফেসবুকে এসব হুমকি-ধামকি কাপুরুষদের কাজ। হুমকি-ধামকির কারণে সত্য সংবাদ প্রকাশ থেকে আমরা কেউ পিছপা হব না। প্রেসক্লাবের সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার চিন্তা করছি।’

কসবা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) লোকমান হোসেন বলেন, ‘এ বিষয়ে একটি অভিযোগ পেয়েছি, পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করছে।

অন্যদিকে,সিলেটে এক সংবাদ কর্মিকে হত্যার হুমকির দেড় মাসেও আসামীকে আইনের আওতায় আনা হচ্ছে না।গত ২২ মে শুক্রবার রাতে যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে এই সংবাদ কর্মীকে হত্যার নির্দেশ দেন একাধিক মামলার আসামী জাকিরুল আলম জাকির। তার এক কর্মীর ফেইসবুক স্ট্যাটাসে গিয়ে রুহিন আহমদের বাড়ির ছবি এবং প্রফাইলে তাকা বিভিন্ন তথ্যসূত্র দিয়ে নির্দেশ করেন হাত পা কেটে ফেলার।

সিলেট কোতোয়ালী থানায় জিডিটি আমলে নিয়ে হুমকির বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছিলেন।কোতোয়ালী থানার অফিসার ইনচার্জ সেলিম মিয়া।

কিন্ত সাংবাদিক রুহিন বলেন, আজ প্রায় দেড় মাসের কাছাকাছি সিলেট কোতোয়ালী থানায় অভিযোগ করে কোন বিচার পাচ্ছি না।এই মামলার দায়িত্বরত সোবহানীঘাট ফাঁড়ির এস আই কামরুল ইসলাম নাঈমকে অনেকবার কল করে আমার বিষয়টি খতিয়ে দেখার জন্য বলেছি।কিন্তু দুঃখের বিষয় আমি একজন সংবাদ কর্মি হয়েও কেন বিচার পাচ্ছি না সেটাই বুজতে পারছি না।
আমি সংবাদের পিছনে ছুটে চলি শহরের অলিগলিতে অনেক সময় সংবাদ সংগ্রহ করার পথে । বিভিন্ন সময় আমার পিছু নিয়েছিলো বখাটে ছেলেরা আমি এস আই নাঈমের সহযোগীতা অনেক বার নিয়েছি।

গত ০১,জুলাই রাত ৯ টায় কোতোয়ালী থানার অফিসার ইনর্চাজ সেলিম মিয়াকে অভিযোগের বিষয়টি ক্ষতিয়ে দেখা হয়েছিলো কি না জানতে চাইলে তিনি মুটোফোনে জানান, তিনি শুনেছেন যে বিষয়টি শেষ হয়ে গিয়েছে।কিন্তু অন্যদিকে সাংবাদিক রুহিন জানান সে বিষয়ে মীমাংসার বিষয়টি সম্পূর্ণ্য মিথ্যা বানুয়াট।সেটার কোন সত্যতা নেই।পরবর্তিতে ওসী সেলিম মিয়া জানান ,বিজ্ঞ আদালতে এ বিষয়ে অনুমতি চেয়ে দ্রুত ব্যাবস্থা গ্রহন করেবেন।

 (আমার বাংলাদেশ/কাআহমেদ// )

প্রতি মুহুর্তের খবর পেতে এখানে(লাইনে) ক্লিক করে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিন

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করবেন

Sharing is caring!

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by: -