মঙ্গলবার, ২ জুন ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম
করোনা যখন সাংবাদিক পাড়ায়’আক্রান্ত ৫  » «   করোনা নিয়ে শালির বিয়েতে দুলাভাই  » «   সচেতনতা বাড়ানোর জন্য ৬৪ জেলাব্যাপী কাজ করবেন’ তামিম ইকবাল  » «   এসএসসি পাস শিক্ষার্থীদের শুভেচ্ছা জানালেন এম.এ. হান্নান  » «   টেস্টের রিপোর্ট পজেটিভ, করোনায় আক্রা’ন্ত মোহাম্মদ নাসিম  » «   নবীগঞ্জে প্রবাস ফেরত গৃহবধুর মামলায় স্বামীসহ গ্রেফতার ৪  » «   আজমিরীগঞ্জে ৬ জুয়াড়ী আটক  » «   যাত্রী সঙ্কট নিয়ে সিলেট থেকে বিমান চলাচল শুরু  » «   বরেণ্য আলেম আল্লামা মুকাদ্দস আলী অসুস্থ, দোয়া কামনা  » «   ছাতকে করোনা ভাইরাসে ১জনের মৃত্যু  » «   তাহিরপুরে আহত সাংবাদিকের মামলা নেয়নি পুলিশ ?  » «   জগন্নাথপুরে আরেকজন করোনায় আক্রান্ত, বাড়ছে আতঙ্ক  » «   জগন্নাথপুর-সিলেট সড়কের নাজুক দশা, গাড়ি চলাচল বন্ধ  » «   গোলাপগঞ্জে করোনা জয় করলেন আরো ১২ জন  » «   শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অফিস খোলার অনুমতি  » «  

বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের ভিন্ন আচরণ!

বিবিসি বাংলা : বিশ্বে দাপিয়ে বেড়ানো নভেল করোনাভাইরাস বাংলাদেশে ভিন্ন আচরণ করছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। শনিবার বাংলাদেশে অষ্টম ব্যক্তির মারা যাওয়ার তথ্য দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। নতুন নয়জন রোগীর দেহে কভিড-১৯ এর অস্তিত্ব শনাক্ত করা হয়েছে। এ নিয়ে দেশে মোট ৭০ জন আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হলেন। এদের মধ্যে ৩০ জন রোগী সুস্থ হয়েছেন।

চীনের উহানে প্রথম রোগী শনাক্ত হয়েছিল ডিসেম্বরের শেষে। জানুয়ারির শেষের দিকে চীনের সকল প্রদেশে ভাইরাসটি ছড়িয়ে পড়ে। যুক্তরাষ্ট্রের জন্স হপকিনস বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্যমতে, চীনে ৮২ হাজারের বেশি রোগীই ছিল তখন সংখ্যায় সবচেয়ে বেশি। কিন্তু দ্রুতই চীনের বাইরে বিভিন্ন দেশে ভাইরাসটি ছড়াতে শুরু করে। চীনের পরে দক্ষিণ কোরিয়ায় মানুষজন বেশ আক্রান্ত হতে থাকে।

ইউরোপে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত দেশগুলোর একটি ইতালি। জন্স হপকিনস বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্যমতে জানুয়ারির শেষে ইতালিতে সংক্রমণ শুরুর পর ৫৯ দিনে এখনো পর্যন্ত সব মিলিয়ে এক লাখের বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রে আক্রান্ত হয়েছেন সর্বাধিক তিন লাখের বেশি মানুষ। এই তালিকায় স্পেন রয়েছে দ্বিতীয় অবস্থানে।

বিশ্বের সবচেয়ে আক্রান্ত অন্যান্য দেশগুলো যেমন স্পেন, ইরান, যুক্তরাজ্য প্রায় সবগুলো দেশেই ভাইরাসটি বৃদ্ধির হারের ক্ষেত্রে ক্রমাগত ঊর্ধ্বগতিই দেখা গেছে।

বাংলাদেশে প্রথম শনাক্ত হওয়া করোনাভাইরাস আক্রান্ত ব্যক্তি ছিলেন ইতালি ফেরত। কিন্তু সেই ইতালি থেকে আসা ভাইরাস বাংলাদেশে কী ভিন্ন আচরণ করছে? এর সম্ভাব্য কী ধরনের কারণ থাকতে পারে?

ভাইরোলজিষ্ট অধ্যাপক নজরুল ইসলাম বলছেন, “বাংলাদেশের ডাটা অন্যদের সাথে মেলে না কেন সেনিয়ে আমিও চিন্তা করছি। আমাদের এখানে ভাইরাসটি ইতালি থেকে এসেছে। সেটি ইতালিতে হ্যাভক তৈরি করলো আর আমাদের এখানে কিছুই করছে না এরকম একটা ব্যাপার। বিষয়টা আমিও বুঝতে পারছি না।”

“তবে উহান থেকে যে ভাইরাসটির উৎপত্তি তা কিন্তু মিউটেশন হয়েছে। কিছু দেশে একই ধরনের সংক্রমণের প্যাটার্ন হয়েছে। আবার অন্য কোথাও একটু ভিন্ন। আমাদের ভাইরাসটি উহান থেকে আসেনি।”

তিনি বলছেন, “দেখুন, জিকা ভাইরাসের সংক্রমণ হয়েছে অনেক দেশে, কিন্তু একটা দেশেই, মাইক্রোকেফালি দেখা দিল- সেটা ব্রাজিলে।”

“তারপর একটা ভাইরাস মালয়েশিয়াতে তৈরি হয়েছে। সেটা হচ্ছে নিপাহ ভাইরাস। যেটা বাংলাদেশে ১৯৯৯ সালের দিকে এলো এবং বাংলাদেশেই ঘোরাফেরা করছে। ভাইরাসের চরিত্র যথেষ্ট গবেষণা না করে বলা কঠিন।”

তিনি আরও বলছেন শুধু ভাইরাস নয়, যিনি ভাইরাসটি বহন করছেন তার কথাও বিবেচনা করতে হবে। সেটি ব্যাখ্যা করে তিনি বলছেন, “একটা ভাইরাস আছে সেটা আফ্রিকানদের যখন আক্রান্ত করে তখন তাদের এক ধরনের ক্যান্সার হয়, একটা লিম্ফোমা হয় ।”

“আর সেই ভাইরাসটিই যখন চীনাদের ইনফেক্ট করে – তখন তাদের নেজো-ফেরেঞ্জিয়াল কার্সিনোমা হয়। যারা ইনফেকটেড হয় তাদের জীনগত বিষয়টাও দেখতে হবে। একটা দেশের মানুষজনের জীনগত বৈশিষ্ট্যের উপরেও অনেক সময় রোগের প্রাদুর্ভাবের সম্পর্ক থাকে।”

অধ্যাপক নজরুল ইসলাম অবশ্য বলছেন, “বাংলাদেশে প্রথম যে রোগী শনাক্ত হল ৮ মার্চ, এর পর প্রথম ইনকিউবেশন পিরিয়ড (লক্ষণ প্রকাশ পাওয়ার কাল) ১৪ দিন। দুটি ইনকিউবেশন পিরিয়ড শেষ হবে এপ্রিলের পাঁচ তারিখ। এই সময়টা খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটা সময়। পাঁচ তারিখের পর সম্ভবত আমরা বলতে পারবো যে বাংলাদেশে প্যাটার্নটা এরকম।”

 (আমার বাংলাদেশ/কাআহমেদ// )

প্রতি মুহুর্তের খবর পেতে এখানে(লাইনে) ক্লিক করে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিন

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করবেন

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by: -